বাজার সম্প্রসারণ ও তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রগতি আমাদের প্রধান লক্ষ্যমাত্রা: জব্বার -
You are here
Home > লোকাল ইভেন্টস > বাজার সম্প্রসারণ ও তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রগতি আমাদের প্রধান লক্ষ্যমাত্রা: জব্বার

বাজার সম্প্রসারণ ও তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রগতি আমাদের প্রধান লক্ষ্যমাত্রা: জব্বার

মোস্তাফা জব্বার গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদশে সরকাররে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী হিসেবে এবং জুনাইদ আহমেদ পলক গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদশে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন।তাঁদের এই র্অজনে বেসিস সহ দেশের সকল তথ্য প্রযুক্তি সংগঠন অভিনন্দন জানানোর লক্ষ্যে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস),বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস), ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি), বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কলসেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য), ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) যৌথভাবে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আজ।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের সেলিব্রেটি হলে সোমবার বিকেলে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় ।

স্বাগত বক্তব্যে বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের অভিভাবক হিসেবে এমন দু’জন মানুষকে বেছে নেয়ার জন্য যাঁরা তথ্যপ্রযুক্তি খাতের আদ্যপান্ত পুরোটাই জানেন। বেসিসের পক্ষ থেকে আমি, জনাব মোস্তাফা জব্বার মাননীয় ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী এবং জনাব জুনাইদ আহ্মেদ পলক, এমপি মাননীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী মহোদয়কে প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি”।

“ডিজিটাল বাংলাদেশের যে অগ্রযাত্রা চলছে তা বেগবান হবে আমাদের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায়। বেসিস দীর্ঘদিন ধরেই তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে কাজ করে আসছে। তথ্যপ্রযুক্তি খাতের শীর্ষ বাণিজ্য সংগঠন হিসেবে বেসিস আজকের মত আগামী দিনেও সবার সাথে দলবদ্ধ হয়ে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নে কাজ করে যাবে,” বলেন কবির।

এছাড়াও নিজ নিজ বক্তব্যে মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান বিসিএস সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার, আইএসপিএবি’র সভাপতি এম এ হাকিম, বাক্যে’র সভাপতি ওয়াহিদুর রহমান শরীফ এবং ই-ক্যাবের সভাপতি শমী কায়সার।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বেসিস, বিসিএস, আইএসপিএবি, বাক্য এবং ই-ক্যাবকে ধন্যবাদ জানিয়ে পলক বলেন, “তথ্যপ্রযুক্তি খাত আজ যে উচ্চতায় আসীন হয়েছে তার কৃতিত্ব তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের পাশাপাশি খাতসংশ্লিষ্ট বাণিজ্য সংগঠনগুলোরও। তথ্যপ্রযুক্তি খাতভিত্তিক বাণিজ্য সংগঠন একসাথে মিলে কাজ করছে বলেই তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা নিজেদের চ্যালেঞ্জের কথা জানাতে পারছেন এবং সরকারের তরফ থেকে বরাদ্দকৃত প্রণোদনা সঠিকভাবে পাচ্ছেন। আমরা সরকারি-বেসরকারি এ মেলবন্ধন আরো অনেক দূর এগিয়ে নিতে চাই। একসাথে আমরা গড়বো প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ”।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জব্বার বলেন, “তথ্যপ্রযুক্তি খাতভিত্তিক বাণিজ্য সংগঠনগুলেরা কাজের পরিসর ও চ্যালেঞ্জ আমি খুব কাছ থেকে দেখেছি। তথ্যপ্রযুক্তি খাতভিত্তিক প্রতিষ্ঠানের প্রত্যাশা এবং সম্ভাবনা সম্পর্কেও আমি ওয়াকিবহাল”।

তিনি আরো বলেন, “সৌভাগ্যের বিষয় বেসিস, বিসিএস, আইএসপিএবি, বাক্য এবং ই-ক্যাব নিজ নিজ সদস্যদের তথা তথ্যপ্রযুক্তি খাতের চাহিদা এবং চ্যালেঞ্জের প্রকৃত তথ্য আমাদের সামনে তুলে ধরছে এবং সরকারও সে মাফিক কাজ করে এসেছে, করবেও। স্থানীয় বাজার সম্প্রসারণ ও স্থানীয় তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন আমাদের প্রধান লক্ষ্য”।

“দেশীয় তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সক্ষমতা বাড়লেই সুদৃঢ় হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের ভিত্তি। তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অগ্রগতির লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছি আমরা। ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নে আমাদের সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে। আশা করি উন্নয়নের এ ধারা আমাদের সবার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আরো বেগবান হবে,” বলেন জব্বার ।

সবশেষে ফুল এবং ক্রেস্ট দিয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির অন্যতম দুই কর্ণধারকে শুভেচ্ছা জানান তথ্যপ্রযুক্তি সংগঠনের প্রতিনিধিরা।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান, সহ-সভাপতি (প্রশাসন) শোয়েব আহমেদ মাসুদ, সহ-সভাপতি (অর্থ) মুশফিকুর রহমান, পরিচালক জনাব তামজিদ সিদ্দিক স্পন্দন, পরিচালক জনাব দিদারুল আলম ও পরিচালক জনাব মোস্তফা রফিকুল ইসলাম ডিউক সহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

Top