অ্যান্ড্রয়েড ওয়ানের সেরা স্মার্টফোনসমূহ - ফিনটেক বাংলা
You are here
Home > টেক বার্তা > গ্যাজেটস > অ্যান্ড্রয়েড ওয়ানের সেরা স্মার্টফোনসমূহ

অ্যান্ড্রয়েড ওয়ানের সেরা স্মার্টফোনসমূহ

বিগত কয়েক বছরে যেসকল স্মার্টফোন মুক্তি পেয়েছে এবছর সেগুলোর বেশ পরিবর্তন ঘটেছে। এর মধ্যে গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ওয়ানের স্মার্টফোনগুলো বাজারে বেশ সাড়া ফেলেছে। গুগল সরাসরি নির্ধারিত স্মার্টফোন মডেলের জন্য ফোন কোম্পানিতে অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণ সরবরাহ করার পাশাপাশি প্রতি মাসে সিকিউরিটি আপডেট, বাগ ফিক্সসহ বিভিন্ন ধরনের সাপোর্ট দিয়ে থাকে। অ্যান্ড্রয়েড ওয়ানের স্মার্টফফোনগুলোর কিছু বিশেষত্ব আছে যেমন এই ফোনগুলিকে বাধ্যতামূলকভাবে অ্যান্ড্রয়েড ইন্টারফেস এবং গুগল সার্ভিসসহ বাজারজাত করা হয়, এগুলো দু’এক বছর পরপর অফিসিয়ালি আপডেট হয়।

শাওমি এ১

শাওমি এ১

চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান শাওমি তাদের প্রথম অ্যান্ড্রয়েড ওয়ান স্মার্টফোন হিসেবে ‘শাওমি এ১’ বাজারে মুক্তি দেয়। ৫.৫ ইঞ্চি আকারের স্ক্রিনের ফোনটির মূল আকর্ষণ ছিল ক্যামেরা। এর রিয়ার ক্যামেরা হিসেবে আছে ১২ এমপির দুটি অমনিভিশনের পিওরসেল ক্যামেরা। অন্যদিকে সেলফি ক্যামেরা হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে একটি ৫ এমপি সেন্সর। ৩০৮০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারির এই ফোনটি ৩২ জিবি এবং ৬৪ জিবির দুটি আলাদা ধারণক্ষমতা রয়েছে। এছাড়াও ২ গিগাহার্জের অক্টাকোর স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫ চিপসেটের সাথে আড্রিনো ৫০৬ জিপিইউ ব্যবহার করা হয়েছে বলে গেমিং-এর জন্য এটি বেশ সুনাম কুড়িয়েছে। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে এই স্মার্টফোনটি বাজারে এসছে।

শাওমি এ২

শাওমি এ২

শাওমি এ১ মুক্তির এক বছর পরেই নতুন সংস্করণ হিসেবে শাওমি এ২ বাজারে এসেছে। এই স্মার্টফোনের পেছনের ক্যামেরায় ১২ ও ২০ এমপির দুটি মাইক্রন পিক্সেলযুক্ত সেন্সর এবং সেলফি ক্যামেরাতে ২০ এমপির মাইক্রনপিক্সেল সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে। অন্যদিকে এতে ১৮:৯ অনুপাতের ৫.৯৯ ইঞ্চির আইপিএস স্ক্রিন, কোয়ালকম স্নাপড্রাগন ৬৬০ সিরিজের অক্টাকোর প্রসেসর, আড্রিনো ৫১২ জিপিইউ ব্যবহার করা হয়েছে। টাইপ-সি ইউএসবি সমৃদ্ধ ফোনটিতে ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি সংযুক্ত করা আছে।

 

নকিয়া ৬.১, নকিয়া ৭ প্লাস

নকিয়া ৬.১

এইচএমডি গ্লোবালের পক্ষ থেকে নকিয়া ৬ ফোনের পরবর্তী সংস্করণ হিসেবে অ্যান্ড্রয়েড ওয়ানের নকিয়া ৬.১ বাজারে আনা হয়েছে। ফোনটিতে ৫.৫ ইঞ্চির ১০৮০ পিক্সেল পর্দা রয়েছে। এই স্মার্টফোনের রিয়ার ক্যামেরায় ১৬ এমপির মাইক্রনপিক্সেলযুক্ত ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে অন্যদিকে সেলফির জন্য ৮এমপির ক্যামেরা ব্যবহৃত হয়েছে। ১৬:৯ অনুপাতের এই  ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারির ফোনটিতে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৩০ সিরিজের অক্টাকোর প্রসেসর এবং অ্যাড্রিনো ৫০৮ জিপিইউ ব্যবহার করা হয়েছে। এ বছরের এপ্রিল মাসে এটি মুক্তি পেয়েছে।

নকিয়া ৭ প্লাস

নকিয়া ৬ এর পাশাপাশি চলতি বছরের মার্চ মাসে নকিয়া ৭ প্লাসও বাজারে এসেছে। ৬ ইঞ্চির এই ফোনে ১২ এবং ১৩ এমপির রিয়ার ক্যামেরা এবং ১৬ এমপির সেলফি ক্যামেরা আছে। এই ফোনের স্পেসিফিক্যাশনগুলো হল অক্টাকোরের কোয়ালকম স্নাপড্রাগন ৬৬০ সিরিজের প্রসেসর, আড্রিনো ৫০৬ জিপিইউ, ৩৮০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি।

 

মটোরোলা মটো এক্স৪

মটোরোলা মটো এক্স৪

অনেক বছর পর মটোরোলা মটো এক্স৪ দিয়ে বাজারে নিজেদের স্থান পোক্ত করেছে। প্রথমদিকে এতে অ্যান্ড্রয়েড ৭ দিলেও পরে এটি অরিও আপডেট পেয়েছে। ৫.২ ইঞ্চির ফোনে ১২ এবং ৮ এমপির রিয়ার ক্যামেরা এবং ১৬ এমপির সাথে মাইক্রনপিক্সেল সমন্বয়ের সেলফি ক্যামেরা আছে। স্মার্টফোনটিতে ৩২জিবি স্টোরেজে ৩ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি স্টোরেজে ৪ জিবি র‍্যাম আছে। এছাড়াও মটোরোলা মটো এক্স৪-এ ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Top