৫ নারী প্রোগ্রামার যারা বদলে দিয়েছে পৃথিবীকে - ফিনটেক বাংলা
You are here
Home > অতুলনীয় নারী > ৫ নারী প্রোগ্রামার যারা বদলে দিয়েছে পৃথিবীকে

৫ নারী প্রোগ্রামার যারা বদলে দিয়েছে পৃথিবীকে

প্রোগ্রামার মানেই একজন পুরুষ হবে এটা আমাদের মৌলিক ধারনা। পরিসংখ্যানও আমাদের ধারনাকে সমর্থন করছে। কিন্তু আমরা কয়জন জানি যে প্রযুক্তির উৎস এই প্রোগ্রামিং-কে একজন নারীই জন্ম দিয়েছে কিংবা কোডিং-এর জগতে রয়েছে কত মহীয়সী নারীর অবদান?  সেকাল এবং একালের এমন ৫ জন নারী প্রোগ্রামার সম্বন্ধে জেনে নিন যারা বদলে দিয়েছে পৃথিবীর রূপ ও আমাদের জীবনযাত্রার মানকে।

অ্যাডা লাভেলাস

অ্যাডা লাভেলাসঃ বিশ্বের প্রথম কম্পিউটার প্রোগ্রামার। ১৭ বছর বয়সে তিনি তার বন্ধু এবং মেন্টর চার্লস ব্যাবেজের তৈরি একটি অ্যানাল্যাটিক্যাল কম্পিউটার ডিজাইন দেখে ভাবতে লাগলেন কিভাবে যন্ত্রটি কাজ করতে পারে। এই চিন্তা থেকে তিনি কাজ শুরু করে দেন এবং একটি প্রোগ্রাম লিখেন যেটি কেবল গণনা করতে পারে। পরবর্তীতে তিনি প্রোগ্রামিং দিয়ে একে আরো কয়েকটি দিকে ডেভেলাপ করেছিলেন। তার হাত ধরেই পৃথিবী প্রোগ্রামিং-এর পথে পা দিয়েছে।

 

জিন জেনিংস বার্টিক

জিন জেনিংস বার্টিকঃ বিশ্বের প্রথম নারী সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। ইনিয়াক প্রোগ্রাম করার জন্য যে ছয়জন নারী প্রোগ্রাম করেছিলেন তাদের মধ্যে তিনি একজন। সেই ঘটনার পর থেকে তাদের পদ মর্যাদা অনেক উঁচু পর্যায়ে পৌঁছে গেলেও ইতিহাসের পরিবর্তনের সাথে সাথে তাদের কেউ মনে রাখেনি।

 

গ্রেস হপার

গ্রেস হপারঃ আমরা কিভাবে কম্পিউটারের সাথে কথা বলি? কম্পিউটার বাইনারি কোড ব্যবহার করে কথা বলে কিন্তু মানুষের পক্ষে তা অসম্ভব। “দ্য সফটওয়্যার কুইন” খ্যাত হপার মনে করতেন যে মানুষের জন্য ইংলিশ কমান্ড ব্যবহার করলে তা সহজবোধ্য হবে। তখন তিনি একটি প্রোগ্রামিং ভাষা “কবল (COBOL)” ডেভেলাপ করেন। এমনকি কম্পিউটার প্রোগ্রামিং-এ যে “বাগ (BUG)” কিওয়ার্ড আছে এটিও তার আবিষ্কার করা।

মারিসা মেয়ার

 

 

মারিসা মেয়ারঃ শুরুটা হয় গুগলের মাধ্যমে। তিনি গুগলের প্রথম নারী ইঞ্জিনিয়ার। গুগল ম্যাপস, জিমেইল, গুগল আর্থ এবং গুগল নিউজসহ তিনি বিভিন্ন ধরনের আধুনিক ও গুরুত্বপূর্ণ প্রোডাক্ট তৈরিতে অবদান রেখেছেন। মাত্র ৩৬ বছর বয়সে তিনি ইয়াহু-তে সিইও হিসেবে নিযুক্ত হয়েছেন।

 

 

লিন্ডসি স্কট

 

লিন্ডসি স্কটঃ সুপরিচিত সুপার মডেল। গুচি থেকে শুরু করে অনেক বড় বড় ব্র্যান্ডের সাথে কাজ করেছেন তিনি। স্কট প্রথম আফ্রিকান-আমেরিকান মডেল যে মর্যাদাপূর্ণ ক্যালভিন ক্লেইন এক্সক্লুসিভের হয়ে কাজ করেছেন। কিন্তু ক্যামেরার পিছনে তিনি একজন প্রোগ্রামার। লিন্ডসি বেশকিছু আইওএস অ্যাপ ডেভেলাপ করেছেন। বিশেষ করে “এডুকেশন” নিয়ে স্কট বেশকিছু অ্যাপ তৈরি করেছেন যেগুলো আফ্রিকার শিশুদের শিক্ষার জন্য উৎসর্গ করেছেন। তিনি প্রোগ্রামিং সাইট “স্ট্যাক ওভারফ্লো” -তে আইওএস উত্তর প্রদানকারী হিসাবে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন।

মন্তব্য করুন

Top