ফোর-জি প্রযুক্তি: বাংলাদেশে অভিজাত উপস্থিতি - ফিনটেক বাংলা
You are here
Home > অন্যান্য > ফোর-জি প্রযুক্তি: বাংলাদেশে অভিজাত উপস্থিতি

ফোর-জি প্রযুক্তি: বাংলাদেশে অভিজাত উপস্থিতি

সুমাইয়া আক্তার

ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি, বেঞ্চমার্ক পিআর

 

বর্তমানে ফোর-জি প্রযুক্তি একটি অন্যতম প্রধান আলোচ্য বিষয় যা বাংলাদেশেও এর অভিজাত প্রবেশ ঘটেছে। আমরা অনেকেই যেহেতু ফোর-জি সম্পন্ন মোবাইল ব্যবহার করি, স্বভাবতই আমরা আগ্রহী হয়ে উঠি ফোর-জি প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে। আমরা ইন্টারনেট বিপ্লবের নতুন যুগের কাছে চলে এসেছি আর এটা হলো ফোর-জি যুগ। গতি এবং নৈপুণ্যতার দিক থেকে, ফোর-জি একটি অনন্য-সাধারণ অভিজ্ঞতা হয়ে উঠবে গ্রাহকদের জন্য।

 

প্রথমেই প্রশ্ন আসে, ফোর-জি কি?

 

এই পরিবর্তনশীল বিশ্বে চতুর্থ প্রজন্মের প্রযুক্তি হলো ফোর-জি।  মোবাইল ড্যাটা প্রযুক্তির চতুর্থ প্রজন্ম এই ফোর-জি নেটওয়ার্ক স্থাপন করা হয়েছে মোবাইল ফোন ইন্ডাস্ট্রির সহায়তায় যেন ডিভাইস অপারেশনের ক্ষেত্রে আরো বেশি ব্যান্ডউইথ প্রদান করতে সক্ষম হয় যেমন তাৎক্ষণিক মেসেজিং, উচ্চমানের ভিডিও কলিং, গেইমিং এবং বাফারিং মুক্ত মোবাইল টিভি। 

 

সংযোগের জন্য যা যা প্রয়োজন

 

ফোর-জি সংযোগ পেতে দুটো উপাদানের প্রয়োজন। এমন একটি নেটওয়ার্ক যা সব প্রয়োজনীয় গতিতে সাপোর্ট দিতে পারে এবং একটা ডিভাইস যেটা ওই নেটওয়ার্ক কে সংযুক্ত করতে সক্ষম হবে আর সহজেই ডাউনলোড ইনফরমেশন কানেক্ট করতে পারবে। তবে শুধু ফোর-জি এলটিই মোবাইলের সাথে সংযুক্ত হলেই হবে না, আপনি যেই এলাকাতে থাকেন সেই এলাকাটিও অপারেটর নেটওয়ার্ক এর আওতাধীন হতে হবে। 

 

ফোর-জি  দরকার কেন

 

সমস্ত টেলিকম অপারেটররা বাংলাদেশে ফোর-জি নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছে। অনেকেই ভাবতে পারে আমাদের টু-জি আর থ্রি-জি তো আছেই, তাহলে ফোর-জি কেন দরকার? থ্রি-জির চাইতে অধিকতর দ্রুত সম্পন্ন এবং এবং শক্তিশালী প্রযুক্তি। পরবর্তী প্রজন্মের এই প্রযুক্তি কে স্বাগত জানানোর আরো কিছু কারণ রয়েছে:

 

  • দ্রুতগতি সম্পন্ন প্রযুক্তি: ধরুন, আপনি কোনো রেস্তোরাঁতে লাঞ্চ করতে যাবেন। রেস্তোরাঁর ঠিকানা জেনে নিচ্ছেন ইন্টারনেটের মাধ্যমে, আপনি ‘চেক-ইন’ দিবেন সেখানে গিয়ে, তারপর খাবারের ছবিগুলো আপনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম – ফেইসবুকে পোস্ট করবেন। আর এ সব কিছুই করবেন আপনার প্রিয় স্মার্টফোন থেকে যা ফোর-জি প্রযুক্তি আপনাকে এই সব কিছুই সহজেই প্রদান করতে পারবে কারণ এটি খুব দ্রুত সম্পন্ন প্রযুক্তি এবং যেকোনো কিছু ডাউনলোড করতে পারবেন মুহূর্তের মধ্যে। তাছাড়া আমরা সবাই কিছু ক্ষেত্রে সামাজিক মাধ্যমের প্রতি দুর্বল। আমরা ছবি আপলোড করতে ভালোবাসি, অনুভূতি যেয়ার করতে পছন্দ করি এবং আরো অনেক কিছুই। আর তাই আমাদের দ্রুত গতির ইন্টারনেট বেশ দরকার হয়েই পরে।

 

  • অনন্য অভিজ্ঞতা: আজকাল স্মার্ট গ্রাহকরা উন্নততর প্রযুক্তি প্রত্যাশা করে থাকে। আর এই স্মার্ট গ্রাহকদের জন্য ফোর-জি ইন্টারনেট হলো একটি স্মার্ট প্রযুক্তি। যেহেতু স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেট গুলো স্ট্রিম ভিডিও ও মিউজিক নিতে সক্ষম, সুতরাং গতির ব্যাপরটা বেশ জরুরি। এই নতুন প্রযুক্তি কিন্তু সেই ব্যাপারে একেবারে আধুনিক। এটার উচ্চমানের ইউজার অ্যাপ্স রয়েছে যা ফোর-জি প্রযুক্তি ইতোমধ্যে সাড়া ফেলে দিয়েছে। আর এই বর্ধিত প্রযুক্তির তোলপাড়ের যুগে, ফোর-জি একটি ট্রেন্ডি নাম বলাই যায় যা একটি নতুন ধরণের অভিজ্ঞতা এনে দিচ্ছে সবার কাছে।

 

বিনোদনে ফোর-জি:

 

ফোর-জি তে থাকছে উচ্চমানের অডিও এবং ভিডিও স্ট্রিমিং প্রটোকল। এইচ-ডি টিভি চ্যানেল থেকে শুরু করে মুভি দেখা – কোনটা নেই ফোর-জিতে ! ফোর-জি তে এইচ-ডি গেইমিং আরো একটি আকর্ষণ গেইম প্রেমীদের জন্য। তরুণ থেকে বয়োজ্যেষ্ঠ – সবাই এই হাই-ডেফিনিশন সম্বলিত ফোর-জির সান্নিধ্যে আসতে অপছন্দ করবে না।  

 

বিনোদন ছাড়াও, কর্মক্ষেত্রে ফোর-জির বিচরণ ফেলনা নয়। ইমেইল, ওয়েব ব্রাউজিং এর জন্য ফোর-জির তুলনা নেই। কর্পোরেট সেক্টর থেকে শুরু করে যেকোনো কর্মস্থলে এই প্রযুক্তি একটি অসাধারণ ঢাল হিসেবে কাজ করবে। আপনি কোন এলাকায় আছেন, কোথায় যেতে চাইছেন বা যাবেন – সেগুলোও আপনি সহজেই সনাক্ত করতে পারবেন এই প্রযুক্তির বলে।  এমনকি আপনার লাইফস্টাইলেও এই ফোর-জি অসাধারণ ভূমিকা রাখবে। আপনার ব্যস্ত জীবনে শপিং থেকে শুরু করে যেকোনো ধরণের ইনফরমেশন সহজেই এবং দ্রুততার সাথে আপনি পেয়ে যাবেন।   

 

তবে চ্যানেল কোয়ালিটি এবং কাভারেজের ক্ষেত্রে ফোর-জি একটা চ্যালেঞ্জিং বিষয়।  কারণ সীমিত এলাকায় ফোর-জির কানেক্শন অনেক দৃঢ় হয় আর থ্রি-জি ব্যবহারে অপারেটররা মনে করে থাকে, সীমিত এলাকার জন্য এই ফোর-জি কানেক্শন পুরো এলাকাকে কাভার করতে সক্ষম নাও হতে পারে।

 

ফোর-জি নিঃসন্দেহে শক্তিশালী একটি প্রযুক্তি এবং বর্তমানে একটি ট্রেন্ডি নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ এখন আর পিছিয়ে নেই, অন্যান্য উন্নত দেশের মতোই ডিজিটাল বাংলাদেশ সার্থক হয়ে চলেছে এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়ে সরকারের ভিশন সফল হওয়ার দ্বারপ্রান্তে এসে পৌঁছেছে। তবে ফোর-জি যেহেতু একটি নতুন প্রযুক্তি, মানুষের সচেতনতা প্রয়োজন এই প্রযুক্তি ব্যবহারে। 

মন্তব্য করুন

Top